Home / Different News / সাবধান, বাথরুম এ উলঙ্গ হয়ে গোসল করেন? এর আগে এই পোষ্ট টি একবার পড়ুন।

সাবধান, বাথরুম এ উলঙ্গ হয়ে গোসল করেন? এর আগে এই পোষ্ট টি একবার পড়ুন।

উলঙ্গ হয়ে গোসল করা জায়েয আছে তবে এটা একেবারে অনুত্তম কাজ , সুন্নতের পরিপন্থী। আল্লাহর রাসুল সা: কখনো এরকম করেনি। মোস্তাহাব ও উত্তম হল লুঙ্গি ইত্যাদি বেঁধে গোসল করা ও মেয়েরা নিচে পায়জামা বা উড়না সাদৃশ্য ও বুকে গামছা সদৃশ্য কিছু রাখবে। কেননা আবু দাউদ শরীফে বর্ণিত আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, মহান আল্লাহ লজ্জাশীল ও পর্দাকারীদের পছন্দ করেন। তাই তোমাদের কেউ যখন গোসল করে তখন সে যেন পর্দা করে নেয়। (তাহতাবী)

বাথরুম এ উলঙ্গ হয়ে গোসল করা যাবে কি? পুরুষ – মহিলা উলঙ্গ গোসলের ক্ষেত্রে ইসলাম কি বলে?

উলঙ্গ হয়ে গোসল করা জায়েয আছে তবে এটা একেবারে অনুত্তম কাজ , সুন্নতের পরিপন্থী। আল্লাহর রাসুল সা: কখনো এরকম করেনি। মোস্তাহাব ও উত্তম হল লুঙ্গি ইত্যাদি বেঁধে গোসল করা ও মেয়েরা নিচে পায়জামা বা উড়না সাদৃশ্য ও বুকে গামছা সদৃশ্য কিছু রাখবে।

কেননা আবু দাউদ শরীফে বর্ণিত আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, মহান আল্লাহ লজ্জাশীল ও পর্দাকারীদের পছন্দ করেন। তাই তোমাদের কেউ যখন গোসল করে তখন সে যেন পর্দা করে নেয়। (তাহতাবী)

গোসলখানায় যদি কোনো পর্দাহীনতা না হয় তাহলে উলঙ্গ হয়ে গোসল করা জায়েয আছে। তবে এটা না করাই উত্তম। কেননা শয়তান তখন ধোকা দেয়। এটা নিন্দনীয় কাজ। ( ফতুয়ায়ে মাহমুদিয়া ৪/৩৮৭)

(এমনিভাবে পর্দার ক্রটি না হলে খোলাস্থানেও উলঙ্গ হয়ে গোসল করা জায়েয আছে তবে এটা ঠিক নয়। সর্ব অবস্থায় আল্লাহ কে ভয় করা এবং গোসলের অযুতে নামায জায়েয)

পর্দার মধ্যে কাপড় খোলে গোসল করা জায়েয আছে তবে না করাই উত্তম। এমনিভাবে খোলা মাঠে পুরুষের নাভি থেকে হাটু পর্যন্ত কাপড় বেঁধে বাকী অংশ খোলা রেখে গোসল করা জায়েয আছে। তাঁর নাভি থেকে হাটু পর্যন্ত (যা পুরুষের সতর) কারো সামনে খোলা হারাম। (আপকে মাসায়েল : উন কা হল) দ্বিতীয় খন্ড, পৃঃ৮১)

মেয়েরা পেন্টি পরে ও পুরুষেরা জাঙ্গিয়া পরে গোসল করলে যদি কাপড়ের নিচে পানি পৌঁছে যায় এবং শরীরের ঢাকা অংশও ধোয়ে ফেলা যায়, তাহলে গোসল ছহীহ হবে।

(আপকে মাসায়েল ২য় খন্ডঃ পৃঃ ৮১)

মহিলারা ব্রা পড়ে গোসল করতে পারবে?

/ মুজামায়ে নিজার ৮/চ৬৮৯

হযরত মুয়াবিয়া ইবনে হাইদা রা: বলেন রাসুল সা : বলিয়াছেন তুমি তোমার স্ত্রী ও হালালকৃত দাসি ব্যাতিত কারো সামনে নিজের সতর খুলবে না। তিনি প্রশ্ন করলেন তাহলে যখন আমরা নির্জনে একাকিত হয় তখনো কি সতর খুলব ( উলঙ্গ) হব না? রাসুল সা : বলেন তখনো আল্লাহকে লজ্জা কর। কেননা তিনি দেখছেন তোমরা কি অবস্থায় আছ /

(জামে তিরমিযী, হাদিসে সহিহ ৭২৬৯/

রাসুল সা: জনৈক সাহাবীকে আদেশ দিলেন যে যখন তোমরা স্বামী স্ত্রী একত্রে সহবাস করবে তখন তোমাদের উপরে একটি লম্বা চাদর দিয়ে দুইজনের শরীর ঢেকে নিবে।

আরো পড়ুন

প্রবাসীর স্ত্রীর ঘরে গভীর রাতে আরেক প্রবাসী আটক

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার ইলিয়টগঞ্জের কুটুমপুর এলাকায় এক প্রবাসী স্ত্রী রাবেয়া বেগমের সাথে মেলামেশা ও অনৈতিক কর্মকাণ্ডের সময় কুমিল্লার সদর উপজেলার মোহাম্মদপুর উলুরচর গ্রামের মৃত আবদুল খালেকের পুত্র ভণ্ড প্রতারক প্রবাস ফেরত দুই সন্তানের জনক হিরন মিয়া (৪৫) নামে এক যুবককে স্থানীয় জনতা হাতে নাতে আটক করে গণধোলা, মাথা ন্যাড়া ও জুতার মালা পড়িয়ে পুলিশে সোর্পদ করে।

পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ইলিয়টগঞ্জ ফাঁড়ির ছেড়ে দেয়। হিরন মিয়া ২ সন্তানের জনক। সে দীর্ঘদিন মালয়েশিয়া প্রবাস থাকার পর সদর দক্ষিণের বিভিন্ন প্রবাসী স্ত্রীর সাথে অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ে।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ইলিয়টগঞ্জের কুটুমপুর এলাকায় এক প্রবাসী স্ত্রী রাবেয়া বেগমের সাথে হিরন মিয়ার সম্পর্ক গড়ে উঠে। তাদের এই সম্পর্ক এক পর্যায়ে গভীর হয়।বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) রাতে কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলা থেকে হিরন মিয়া রাতে ওই রাবেয়া বেগমের শ্বশুর বাড়িতে দেখা করতে যায়। এ সময় এলাকার লোকজন হিরন মিয়াকে দেখে স্থানীয়দের মাঝে সন্দেহ হয়। এক পর্যায়ে স্থানীয়রা হিরন মিয়ার পিছু ছুটতে থাকে। পরে দেখে এক প্রবাসী স্ত্রীর রুমে প্রবেশ করেছে। কয়েক ঘণ্টা ব্যাপী ওই রুমে অবস্থান করার কারণে স্থানীয়দের মাঝে সন্দেহ আরো বেড়ে যায়। স্থানীয় এলাকার মেম্বার, মাতব্বরদের নিয়ে প্রবাসী স্ত্রীর রুম খোলার জন্য অনুরোধ জানায়।

এক পর্যায়ে দরজার খুলে খাটে বসা অবস্থায় প্রবাসী স্ত্রী রাবেয়া বেগম ও হিরন মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে স্ব-উত্তর দিতে না পারায় স্থানীয়রা হিরনের মাথা ন্যাড়া করে গলায় জুতার মালা পড়িয়ে রাস্তায় ছেড়ে দেয় এবং প্রবাসী স্ত্রীকে সামাজিকভাবে সমস্যার সমাধান করার আশ্বাস প্রদান করে। পরে ন্যাড়া অবস্থায় হিরন মিয়াকে পুলিশ রাস্তা থেকে সন্দেহজনকভাবে আটক করে এবং খোঁজ খবর নেয়ার পর ইলিয়টগঞ্জ ফাঁড়ি ছেড়ে দেয়। তবে ফাঁড়ির ইনচার্জ জীবন চন্দ্র সাহা বিষয়টি মিথ্যা বলে এড়িয়ে যান এবং তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানান।

হিরনের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, পুলিশ আটক করার পর থেকে হিরনকে আর খোঁজে পাচ্ছে পরিবারের লোকজন। উলুরচর গ্রামের স্থানীয়রা জানান, ইলিয়টগঞ্জে কোন মহিলার সাথে অনৈতিক কর্মকাণ্ড করার জন্য আটকের খবর আমরা শুনেছি। তাকে এলাকায় দেখা যাচ্ছে না। হয়তো লজ্জার কারণে সে পলাতক রয়েছে।সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা যায়, অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত বিদেশ ফেরত হিরন মিয়া এলাকায় প্রবাসী স্ত্রীদের সাথে পরকীয়া প্রেমে লিপ্ত হয়ে তাদেরকে ব্লেকমেইল করে অর্থ আত্মসাত করে আসছিল।এছাড়াও সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় চোরাচালান রাজত্ব কায়েম করেছে। তার ভয়ে এলাকার যুবক, আবাল বৃদ্ধা-বর্ণিতা কেউ মুখ খুলতে সাহস পায়নি।হিরন একজন মাদকাসক্ত, দিনের পর দিন বেপরোয়া ভাবে নানা অপরাধ ও অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ছে। যার ফলে এলাকার নিরহ ও সাধারণ মানুষ ভয়ে তার বিরুদ্ধে মুখ খোলার সাহস পাচ্ছে না। সূত্রঃ দৈনিক বাংলার আলোড়ন।

About dharonabd

Check Also

সুন্দরী এই মেয়েকে বিয়ে করলে পাওয়া যাবে ১২০০ কোটি টাকা, অথচ কেউ বিয়ে করছে না…

সুন্দরী এই মেয়েকে বিয়ে করলে পাওয়া যাবে ১২০০ কোটি টাকা, অথচ কেউ বিয়ে করছে না… …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *